অ্যাপেন্ডিক্স বা অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

অ্যাপেন্ডিক্স বা অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

অ্যাপেন্ডিক্স বা অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

আমাদের বৃহদন্ত্র নলের মতো ফাঁপা। বৃহদন্ত্রের তিনটি অংশের মধ্যে প্রথম অংশ হচ্ছে সিকাম। এই সিকামের সাথে ছোট একটি আঙ্গুলের মত দেখতে অংশটি হলো এপেনডিক্স।

কোন কারণে যদি এর মধ্যে পাঁচিত খাদ্য, মল বা কৃমি ঢুকে যায়, তাহলে রক্ত ও পুষ্টির অভাব দেখা দেয়। নানান জীবাণুর আক্রমণে এপেনডিক্সের ঐ অংশে বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। একেই এপেনডিসাইটিস বলে।

এটা পেটের নীচের ডান দিকে বুক আর শ্রোণীচক্রের মধ্যবর্তী এলাকায় অবস্থিত। আমাদের শরীরে অ্যাপেন্ডিক্স-এর সঠিক ভূমিকা অজানা, কিন্তু অন্যান্য প্রাণীদের মধ্যে, এটা হজমে সাহায্য করে।

আরও বিস্তারিত জানতে এবং সরাসরি ডাক্তারের পরামর্শের জন্য কল করুন – +8801949605525

অ্যাপেন্ডিসাইটিস হচ্ছে একটা জরুরি অবস্থা যাতে অ্যাপেন্ডিক্স উত্তপ্ত হয় এবং পেটের নীচের ডানদিকে প্রচণ্ড ব্যথা সৃষ্টি করে। এছাড়া, অ্যাপেন্ডিসাইটিস থাকা ব্যক্তিরা অন্যান্য উপসর্গ, যেমন বমি, জ্বর, এবং পিঠের নীচের অংশে ব্যথা অনুভব করেন।

পেটের অনেক ব্যথাই আমরা গ্যাসের ব্যথা বলে এড়িয়ে যাই। কিন্তু সব ব্যথাই তো আর গ্যাসের নয়। অনেক সময় ভয়ঙ্কক রোগের আলামত হিসেবেও এই ব্যথা দেখা দেয়।

অ্যাপেন্ডিক্স এর ব্যথাকে অনেকেই স্বাভাবিকভাবে দেখে দেরি করে ফেলেন কিন্তু এজন্য ঘটতে পারে অনেক বড় বিপদ। বিশ্বের প্রায় ৫ শতাংশ মানুষের প্রাণ যায় এই অ্যাপেন্ডিক্স এর সময়মতো চিকিৎসা না হওয়ায়।

অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি?

অ্যাপেন্ডিসাইটিস হল একটা চিকিৎসাগত জরুরি পরিস্থিতি যা যেকোন বয়সে ঘটতে পারে কিন্তু ১০-৩০ বছর বয়সের ব্যক্তিদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। এটা অ্যাপেন্ডিক্স-এর একটা বেদনাদায়ক স্ফীতি বা প্রদাহ, একটা ছোট, নলাকার বা আঙুলের মত থলি যা বৃহদন্ত্র থেকে প্রসারিত হয়।

অ্যাপেন্ডিক্স-এর মুখটা হচ্ছে ছোট, যা খাবার এবং মলযুক্ত বস্তু এর মধ্যে জমা হতে পারে, কখনও কখনও একটা বাধা সৃষ্টি করতে পারে। এই বাধা একটা জীবাণুগত সংক্রমণ গড়ে তুলতে পারে। 

যদি অ্যাপেন্ডিক্স এই পর্যায়ে ফেটে যায়, এবং যদি সময়মত চিকিৎসা না করা হয় এটা পৈটিক গহ্বরে জীবাণুগত সংক্রমণ ছড়াবে যা জীবন-সংশয়কর হতে পারে। যখন অ্যাপেন্ডিক্স উত্তপ্ত হয়, আপনি আপনার পেটে থেকে থেকে ব্যথা অনুভব করতে পারেন।

ব্যথাটা ধীরে ধীরে তীব্র এবং অবিরত হয়। এটা নীচের ডানদিকে স্থির থাকে যেখানে অ্যাপেন্ডিক্স অবস্থিত। হাঁটা-চলা, কাশতে থাকা, অথবা পেটে চাপ দেওয়া ব্যথাটাকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে। জ্বর, খিদে না হওয়া এবং পেট খারাপ এগুলোও অ্যাপেন্ডিসাইটিস-এর সাথে কখনও কখনও জড়িত থাকে।

লক্ষণ সমূহঃ

পেটের নীচের ডানদিকে ব্যথা অ্যাপেন্ডিসাইটিস-এর বৈশিষ্ট্য। যাই হোক, আপনি এর সাথে যুক্ত অন্যান্য উপসর্গও অনুভব করতে পারেন, যেমনঃ

  • পেট খারাপ বা কোষ্ঠকাঠিন্য (পায়খানা শক্ত হওয়া)।
  • অল্প-মাত্রার জ্বর।
  • বমি বমি ভাব এবং বমি করা।
  • খিদে না হওয়া।
  • পৈটিক স্ফীতি (ফোলা)।
  • ফুলে ওঠা বা গ্যাস বার করতে অক্ষমতা।
  • নাভির চারপাশের ব্যথা পেটের নীচের ডানদিকে এগোতে থাকা।

অ্যাপেন্ডিসাইটিস এর উপসর্গগুলি হাঁটাচলা, তলপেটে চাপ দেওয়া কিংবা কাশতে থাকায় আরও খারাপ হতে পারে।

চিকিৎসাঃ

অ্যাপেন্ডিক্টোমি বা অ্যাপেন্ডিসেক্টোমি হচ্ছে একটা অস্ত্রোপচারমূলক প্রক্রিয়া যেখানে অ্যাপেন্ডিক্স বার করে দেবার জন্য তলপেটে একটা কাটা বা ছেদ করা হয়। কিছু ক্ষেত্রে, একটা অ্যান্টিবায়োটিক থেরাপিও ব্যবহার করা হয়।

যখন অ্যাপেন্ডিক্স-এর সরু নল মল অথবা খাবারে বন্ধ হয়ে যায়, এটা ফেটে যেতে পারে এবং ভিতরের বস্তুগুলো চারপাশের পৈটিক টিস্যুগুলিতে ছড়াতে পারে যার ফলে একটা সংক্রমণ ঘটাতে পারে। এই রকম কোন ক্ষেত্রে, সময়মত এই সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি।

অ্যাপেন্ডিসাইটিসের চিকিৎসা হলো আক্রান্ত অংশ বা অ্যাপেন্ডিক্স যত দ্রুত সম্ভব অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কেটে ফেলে দেওয়া। অস্ত্রোপচারের ভয়ে অনেকে হাসপাতালে যেতে চান না। অনেক সময় শিশু বা বেশি বয়স্করা ব্যথার সঠিক বর্ণনাও দিতে পারে না।

কিন্তু জটিলতা এড়াতে পেটে ব্যথা তীব্র ও স্থায়ী অথবা থেকে থেকে হলে রোগীকে শক্ত খাবার দেওয়া থেকে বিরত থাকুন বা মুখে খাবার দেওয়া বন্ধ রাখুন এবং দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান। এপেনডিসাইটিস হলে দেরী না করে সাথে সাথে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ অপারেশনই এই রোগের চিকিৎসা।

কোনো ওষুধে বা অ্যান্টিবায়োটিকে এ রোগ সারে না। অ্যাপেন্ডিসাইটিসের সমস্যা দেখা দিলে অপারেশন ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই করতে হয়। না হলে অ্যাপেন্ডিক্স ফেটে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা থাকে। তাই অ্যাপেন্ডিক্স জনিত লক্ষণ গুলো দেখা দিলেই দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন, সুস্থ থাকুন।

অ্যাপেন্ডিক্স সার্জারী এর অত্যাধুনিক চিকিৎসা সম্পর্কে ফ্রী পরামর্শ পেতে “সিরিয়াল বুক করুন

আরও বিস্তারিত জানতে এবং সরাসরি ডাক্তারের পরামর্শের জন্য কল করুন – +8801949605525

Tags: No tags

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *