মাহিম অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

এ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য যোগাযোগ করুন -

মাহিম অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

এ্যাম্বুলেন্স জন্য ফোন করুন -

আলিফ এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

এ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য যোগাযোগ করুন -

আলিফ এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

এ্যাম্বুলেন্স জন্য ফোন করুন -

জীবনরক্ষাকারী উচ্চমূল্যের ওষুধ দেশে তৈরি সম্ভব: অধ্যাপক ডা. আবদুল্লাহ

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

জীবনরক্ষাকারী উচ্চমূল্যের ওষুধ দেশে তৈরি সম্ভব: অধ্যাপক ডা. আবদুল্লাহ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমিরেটাস অধ্যাপক ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ বলেছেন, বিভিন্ন ধরনের জটিল রোগের অনেক ওষুধ বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয়। এতে যেমন সময় ব্যয় হয়, তেমনি ওষুধের দামও অনেক বেড়ে যায়। দেশেই অনেক ওষুধ কোম্পানি রয়েছে, যারা এ ধরনের ওষুধ তৈরি করতে সক্ষম। দেশে এসকল ওষুধ উৎপাদন করতে পারলে জীবনরক্ষাকারী ওষুধ প্রাপ্তি যেমন সহজলভ্য হতো, আবার দামও হতো তুলনামূলকভাবে অনেক কম।

শনিবার (১০ জুন) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব কনভেনশন হলে অনুষ্ঠিত পালমোনারি হাইপারটেশন বিষয়ক প্রথম বৈজ্ঞানিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এক্ষেত্রে চিকিৎসকরা যদি উদ্যোগ নেন, তাহলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রয়োজনীয় সহযোগিতা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সহায়তার আশ্বাস দেন অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর (ভিসি) অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, পালমোনারি হাইপারটেশন নীরব ঘাতক রোগ। বুকে ব্যাথা, বুক ধরফর করা, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, পায়ে পানি আসা, সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠতে না পারা, স্মৃতি শক্তি লোপ পাওয়া বা কিছু মনে রাখতে না পরা এ ধরনের উপসর্গ দেখা দিলে অবশ্যই চিকিৎসককের পরামর্শ নিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, বিএসএমএমইউয়ে পালমোনারি হাইপারটেশন রোগ নির্ণয় ও সুচিকিৎসার সব ধরনের সুযোগ নিশ্চিত করতে কার্যকরী উদ্যোগ নেয়া হবে। এ ধরনের রোগীর ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ পর্যন্ত এ ধরনের ৬৫ রোগী রেজিস্টার্ড হয়েছে এবং এই প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন, ইউজিসির অধ্যাপক প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. সজল কৃষ্ণ ব্যানার্জী, প্রখ্যাত বাতরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. সৈয়দ অতিকুল হক, ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোঃ আবুল কালাম আজাদ, সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদ আরাফাত, রিউমাটোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মিনহাজ রহিম চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. মোঃ আবু শাহীনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

পালমোনারি হাইপারটেশন সাপোর্ট গ্রুপ আয়োজিত এই সম্মেলনে জানানো হয়, মাল্টি ডিসিপ্লিনারি উদ্যোগের মাধ্যমে এই রোগের চিকিৎসার জন্য জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা এবং চিকিৎসকদের মধ্যে একটি ঐক্যবদ্ধ সিস্টেম চালু করা এই সম্মেলনের মূল্য উদ্দেশ্য।


Source: doctortv.net

কিডনিতে পাথর হওয়ার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

কিডনিতে পাথর হওয়ার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার

কিডনিতে পাথর হওয়ার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার

আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অনিয়মিত কিছু খাদ্যাভাসের জন্য নিজেরাই নিজেদের অজান্তেই রোগ বাধিয়ে নেই। অস্বাস্থ্যকর খাবার, অনিয়মিত ঘুম ও শরীর চর্চার অভাবে অনেক সময় আমরা জটিল রোগের সম্মুখীন হই। 

বর্তমান সময়ে আমাদের জীবনের সাধারণ কিছু সমস্যার মতই কিডনিতে পাথর হওয়া যুক্ত হয়েছে। চারপাশের কেউ না কেউ এই সমস্যায় ভুক্তভোগী। নারী পুরুষ উভয়ই এ সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে থাকেন এবং যার সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

কিডনির ভেতরে মিনারেল জমে ক্রিস্টাল বা স্ফটিকের মতো পদার্থ তৈরি করে যাকে আমরা কিডনিতে পাথর বলে জানি। অর্থাৎ ক্যালসিয়াম ও অক্সালেটের ডিপোজিশন হলে এই রোগের উৎপত্তি হয় যা কিডনিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে থাকে।

চিকিৎসা না করলে ধীরে ধীরে কিডনির কার্যক্ষমতা কমতে থাকে এবং একসময় একেবারেই অকার্যকর হয়ে যেতে পারে। কিডনির কার্যক্ষমতা কমতে থাকা নির্ভর করে কিডনিতে পাথরের ধরন, অবস্থান, আকৃতি উপর এবং পরবর্তীতে সঠিক চিকিৎসা ও প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার ওপর। অনেক সময় রোগীর মৃত্যুর কারণও হয়ে দাঁড়ায় এই পাথর।

আরও বিস্তারিত জানতে এবং সরাসরি ডাক্তারের পরামর্শের জন্য কল করুন – +8801949605525

আমাদের শরীরের রক্ত পরিশোধনের অঙ্গ হলো এই কিডনি। শরীরে জমে থাকা অনেক রকম বর্জ্যও পরিশোধিত হয় কিডনির মাধ্যমেই। তাই কিডনি ভাল রাখতে আমাদের কিছু নিয়ম অবশ্যই মেনে চলা উচিৎ। তাহলে আসুন জেনে নেই কিডনিতে পাথর হওয়ার কারণ এবং প্রতিকারে করণীয়তা নিয়ে কিছু জরুরি তথ্য –

সাধারণত আমরা কিডনির খেয়াল রাখা বা যত্ন নেয়া বলতে শরীরের চাহিদা অনুযায়ী পানি পান, মূত্রজনিত কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না সে খেয়াল রাখা কিংবা তলপেটে বা কোমরে একটানা ব্যথা থাকলে তা নিয়ে সতর্ক থাকা এতটুকুই জানি।

কিন্তু কিডনির নানা সমস্যা বিশেষ করে রেনাল স্টোনে আক্রান্ত হওয়া মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়। আধুনিক জীবনযাপন, অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস ইত্যাদি রেনাল স্টোনের অন্যতম কারণ।

পাথর নানা আকারের হয়ে থাকে। সাধারণত, পাথরের সংখ্যা কম ও আকার খুব ছোট হলে তা কোনো রকম উপসর্গ ছাড়াই শরীরে থেকে যেতে পারে। ঔষুধের মাধ্যমে তা গলিয়ে দেয়া বা শরীরের বাইরে বের করে দেয়ার চেষ্টাও করা হয়। কিন্তু সংখ্যায় বেশি বা আকারে বড় হলে তা কিছু লক্ষণ প্রকাশ করে  এবং অস্ত্রোপচারের প্রয়োজনও হয়ে থাকে।

কিডনিতে পাথর সার্জারী এর অত্যাধুনিক চিকিৎসা সম্পর্কে ফ্রী পরামর্শ পেতে “সিরিয়াল বুক করুন

কিডনির পাথর হওয়ার কারণঃ

কিডনিতে পাথর তৈরির কারণ জানার জন্য অনেক গবেষণা হয়েছে এবং আজও চলছে কিন্তু কিডনিতে পাথর জমা হওয়া বা তৈরি হওয়ার প্রকৃত কারণ এখনও জানা যায়নি। তবে কিছু কিছু বিষয় রয়েছে যা কিডনিতে পাথর তৈরির কারণ হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। যেমন –

  • খাবারে অধিক লবণ।
  • দৈনিক অল্প পানি পান।
  • কম ফলফলাদি ও শাকসবজি খাওয়া।
  • বেশি বা খুব কম ক্যালসিয়ামযুক্ত খাবার খাওয়া।
  • কিডনিতে বারবার সংক্রমণ এবং যথোপযুক্ত চিকিৎসা গ্রহণ না করা।
  • যারা ক্যালসিয়াম জাতীয় ট্যাবলেট প্রচুর পরিমাণে খেয়ে থাকে তাদেরও পাথর হওয়ার আশঙ্কা বেশি।
  • যেসব লোকের ইনফ্লামেটরি বাওয়েল রোগ থাকে, তাদের কিডনির রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।
  • কিডনিতে পাথর হওয়ার অন্যতম কারণ হলো লাল মাংস যেমন-গরু ও খাসির মাংস এবং পোলট্রির মাংস বেশি বেশি খাওয়া।
  • অনিয়ন্ত্রিত উচ্চরক্তচাপ অথবা মূত্রাশয়ে প্রদাহ কিংবা বাতের ব্যথার উপযুক্ত চিকিৎসা না করালে কিডনিতে পাথর হতে পারে।
  • টপিরামেট জাতীয় (এটা টোপাম্যাক্স হিসেবে পাওয়া যায়) ওষুধ কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়। এগুলো সাধারণত মাইগ্রেনের রোগে ব্যবহার করা হয়।
  • অতিরিক্ত অক্সালেট জাতীয় শাকসবজি যেমন- পুঁই শাক, পালং শাক, বিট ইত্যাদি বেশি পরিমাণে খেলে কিডনিতে পাথর হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তবে পরিমিত পরিমাণে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

কিডনিতে পাথর হওয়ার উপসর্গঃ

অধিকাংশ ক্ষেত্রে কোনো ধরনের উপসর্গ না-ও থাকতে পারে। তবে-

  • কাঁপুনি দিয়ে জ্বর।
  • ঘোলাটে এবং দূর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব।
  • ব্যথার সাথে সাথে বমি বমি ভাব বা বমি হতে পারে।
  • মাঝে মাঝে প্রস্রাবের সঙ্গে ছোট ছোট পাথর যেতে পারে।
  • রক্তবর্ণের লাল প্রস্রাব, ব্যথা, জ্বালাপোড়া থাকতে পারে।
  • ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া বা অল্প একটু প্রস্রাব হয়েই আর না হওয়া।
  • হঠাৎ তলপেটে বা পেটের নিচের দিকের দুই পাশে বা কোমরে তীব্র ব্যথা হওয়া।

কিডনির অবস্থানে (কোমরের পিছন দিকে) ব্যথা। এই ব্যথা তীব্র তবে সাধারণত খুব বেশি ক্ষণ স্থায়ী হয় না। ব্যথা কিডনির অবস্থান থেকে তলপেটেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। তবে আকস্মিকভাবে পেট বা পিঠে ব্যথা অনুভব করা কিংবা প্রস্রাবের সময় ব্যথা অনুভব করা মানেই কিডনিতে পাথরের লক্ষণ নয়, তবে এসব ক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন, কারণ হতে পারে এটি মারাত্নক কোন রোগের লক্ষণ। এসব উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং পরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে নিন আসলেই কিডনিতে পাথরের জন্য এমন হচ্ছে কিনা।

কিডনিতে পাথরের চিকিত্‍সাঃ

কিডনির অবস্থানে ব্যথা এবং রক্তবর্ণের প্রসাব হলে চিকিৎসকরা সাধারণত দুটো সম্ভাবনার কথা চিন্তা করেন। একটি হল কিডনির ইনফেকশন, অন্যটি কিডনিতে পাথর। তাই কিডনির এক্সরে, আলট্রা সনোগ্রাম এবং প্রসাবের নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরই উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

কখনও পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি আর যথাযথ ওষুধ খেলেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে অস্ত্রপচারই একমাত্র উপায়। কিডনিতে পাথর হলেই অপারেশন করতে হয় এমন ধারণা ঠিক নয়। চিকিৎসা নির্ভর করে পাথরের অবস্থান, আকার, ধরন, কিডনির কার্যকারিতা এবং প্রস্রাবের পথে প্রতিবন্ধকতার ওপর।

কিডনিতে পাথর সার্জারী এর অত্যাধুনিক চিকিৎসা সম্পর্কে ফ্রী পরামর্শ পেতে “সিরিয়াল বুক করুন

ছোট অবস্থায় ধরা পড়লে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যথানাশক ওষুধ সেবন এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করার মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব, কারণ ছোট আকৃতির পাথর  সাধারণত প্রস্রাবের সাথে বের হয়ে যায়। 

কিছু ক্ষেত্রে পাথর অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচার বা যন্ত্রের মাধ্যমে পাথর ভেঙে বের করা হয়। কিছু ক্ষেত্রে অস্ত্রোপচার না করে ওষুধ সেবন করার মাধ্যমে পাথর বের করা বা পাথর আর বড় না হওয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

অস্ত্রোপচারের পরও আবার পাথর হতে পারে। সে ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদী ওষুধ সেবন করলে সুফল পাওয়া যেতে পারে। মনে রাখা প্রয়োজন, দৈনিক ৮-১০ গ্লাস বিশুদ্ধ পানি পান করলে শরীর থেকে উপযুক্ত পরিমাণে বর্জ্য পদার্থ প্রস্রাবের সাথে বের হয়ে যায় এবং কিডনিতে পাথরের ঝুঁকি এবং জটিলতা কে কমিয়ে আনে।

উপসংহারঃ

অনেক রোগীই ওষুধ চান, যা খেলে পাথর গলে বের হয়ে যাবে। সত্যিকার অর্থে এমন কোনো কার্যকরী ওষুধই নেই। তাই একবার পাথর হলে, ছোট অবস্থায় তা নিজেই বের হয়ে যেতে পারে, অন্যথায় অপারেশনের মাধ্যমে তাকে বের করে ফেলতে হবে। কিডনির ভেতর পাথর থাকলে কিডনির ক্ষতি হয়। পাথর যাতে কিডনিতে না হতে পারে সে ব্যবস্থা নেওয়া অত্যাবশ্যক। 

পাথর যদি একের অধিক হয়ে থাকে এবং তা কিডনির গভীরে থাকে বা কিডনিতে পাথর কোন ধরনের চাপ সৃষ্টি না করে সেসব ক্ষেত্রে কী ধরনের চিকিৎসা রোগীর জন্য উপকারী হবে তা বিশেষজ্ঞ ডাক্তারই বলতে পারবেন। তাই যে কোন সমস্যাতেই হাতুড়ে কবিরাজের পরামর্শমত আজেবাজে চিকিৎসা করিয়ে নিজের ক্ষতি ডেকে আনবেন না। সময় থাকতে সচেতন হোন, সুস্থ থাকুন।

আরও বিস্তারিত জানতে এবং সরাসরি ডাক্তারের পরামর্শের জন্য কল করুন – +8801949605525

ডেঙ্গু জ্বরের কারণ , লক্ষণ ও চিকিৎসা

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

ডেঙ্গু জ্বরের কারণ , লক্ষণ ও চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বর, যাকে প্রায়ই ডেঙ্গু বলা হয়, এটি একটি মশা-বাহিত ভাইরাল সংক্রমণ যা বিশ্বের অনেক অংশে, বিশেষ করে গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-ক্রান্তীয় অঞ্চলে একটি উল্লেখযোগ্য স্বাস্থ্য হুমকির সৃষ্টি করে। এটি অনুমান করা হয় যে প্রতি বছর 390 মিলিয়নেরও বেশি মানুষ ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। ডেঙ্গু জ্বরের কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা বোঝা প্রতিরোধ ও কার্যকর ব্যবস্থাপনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ডেঙ্গু জ্বরের কারণ

ডেঙ্গু জ্বর ডেঙ্গু ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট হয়, যা প্রাথমিকভাবে সংক্রামিত স্ত্রী এডিস মশা, বিশেষ করে এডিস ইজিপ্টাই কামড়ের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে ছড়ায়। এই মশাগুলি সাধারণত শহুরে এবং আধা-শহুরে এলাকায় পাওয়া যায়, পুরানো টায়ার, ফুলের পাত্র এবং বৃষ্টিতে ভরা পাত্রের মতো স্থির জলের উত্সগুলিতে বংশবৃদ্ধি করে।

ডেঙ্গু ভাইরাসের চারটি স্বতন্ত্র সেরোটাইপ রয়েছে (DEN-1, DEN-2, DEN-3 এবং DEN-4)। একটি সেরোটাইপের সংক্রমণ সেই নির্দিষ্ট সেরোটাইপের আজীবন অনাক্রম্যতা প্রদান করে, কিন্তু পরবর্তীতে অন্যান্য সেরোটাইপের সংক্রমণের ফলে মারাত্মক ডেঙ্গু হতে পারে, যা ডেঙ্গু হেমোরেজিক ফিভার বা ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোম নামেও পরিচিত।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ

ডেঙ্গু জ্বর হালকা থেকে গুরুতর পর্যন্ত হতে পারে এবং এর লক্ষণগুলি সাধারণত সংক্রামিত মশা কামড়ানোর 4-10 দিন পরে দেখা যায়। সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

উচ্চ জ্বর: আকস্মিক এবং উচ্চ-গ্রেডের জ্বর ডেঙ্গুর একটি বৈশিষ্ট্য। এটি প্রায়ই গুরুতর মাথাব্যথা দ্বারা অনুষঙ্গী হয়।

গুরুতর জয়েন্ট এবং পেশী ব্যথা: পেশী এবং জয়েন্টগুলিতে তীব্র ব্যথার কারণে ডেঙ্গুকে কখনও কখনও “ব্রেকবোন ফিভার” বলা হয়।

ত্বকের ফুসকুড়ি: একটি ফুসকুড়ি, যা চুলকানি হতে পারে, প্রায়শই জ্বর শুরু হওয়ার কয়েক দিন পরে দেখা যায়। এটি সাধারণত বাহু ও পায়ে শুরু হয় এবং শরীরের বাকি অংশে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

চোখের পিছনে ব্যথা: চোখের সকেটে ব্যথা, প্রায়শই গভীর ব্যথা হিসাবে বর্ণনা করা হয়, এটি আরেকটি সাধারণ লক্ষণ।

রক্তপাত: কিছু ডেঙ্গু রোগীর হালকা রক্তপাত হতে পারে, যেমন নাক থেকে রক্তপাত, মাড়ি থেকে রক্তপাত বা সহজে ঘা।

বমি বমি ভাব এবং বমি: বমি বমি ভাব, বমি এবং পেটে ব্যথাও সাধারণ লক্ষণ।

ক্লান্তি: চরম ক্লান্তি এবং দুর্বলতা প্রায়শই জ্বর কমার পরে কয়েক সপ্তাহ ধরে থাকে।

গুরুতর ক্ষেত্রে, এই রোগটি ডেঙ্গু হেমোরেজিক ফিভার বা ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোমে পরিণত হতে পারে, যা জীবন-হুমকি হতে পারে এবং অবিলম্বে চিকিৎসার প্রয়োজন। গুরুতর ডেঙ্গুর সতর্কতা লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে তীব্র পেটে ব্যথা, অবিরাম বমি, দ্রুত শ্বাস, মাড়ি থেকে রক্তপাত, ক্লান্তি এবং অস্থিরতা।

রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বর নির্ণয়ের জন্য সাধারণত ক্লিনিকাল মূল্যায়ন এবং পরীক্ষাগার পরীক্ষার সমন্বয় জড়িত থাকে। রক্ত পরীক্ষা, যেমন ডেঙ্গু NS1 অ্যান্টিজেন পরীক্ষা বা PCR (পলিমারেজ চেইন প্রতিক্রিয়া) পরীক্ষা, ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরের চিকিত্সা প্রাথমিকভাবে সহায়ক, কারণ এই রোগের জন্য কোনও নির্দিষ্ট অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ নেই। নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি প্রায়শই নেওয়া হয়:

তরল প্রতিস্থাপন: পর্যাপ্ত হাইড্রেশন বজায় রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধ করার জন্য রোগীদের ওরাল রিহাইড্রেশন সলিউশন, পানি এবং পরিষ্কার তরল পান করতে উৎসাহিত করা হয়।

ব্যথা এবং জ্বর ব্যবস্থাপনা: ওভার-দ্য-কাউন্টার ব্যথা উপশমকারী যেমন অ্যাসিটামিনোফেন (প্যারাসিটামল) জ্বর কমাতে এবং ব্যথা উপশম করতে ব্যবহৃত হয়। আইবুপ্রোফেনের মতো নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগ (NSAIDs) এড়িয়ে চলুন, কারণ তারা রক্তপাতের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

বিশ্রাম: পুনরুদ্ধারের জন্য পর্যাপ্ত বিশ্রাম অপরিহার্য, বিশেষত ডেঙ্গু চরম ক্লান্তি সৃষ্টি করতে পারে।

হাসপাতালে ভর্তি: গুরুতর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীদের, পেটে ব্যথা, বমি এবং রক্তপাতের মতো সতর্কতা লক্ষণ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, তাদের প্রায়ই নিবিড় পর্যবেক্ষণ এবং শিরায় তরল গ্রহণের জন্য হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয়।

 হাসপাতালে ভর্তির জন্য কল করুন :  +8801949605525

ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধ

যেসব এলাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ রয়েছে সেখানে প্রতিরোধই মুখ্য। সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে এখানে কিছু ব্যবস্থা রয়েছে:

মশা নিয়ন্ত্রণ: আপনার বাড়ির আশেপাশে মশার প্রজনন স্থানগুলিকে নির্মূল করুন যা স্থির জল সংগ্রহ করে এমন পাত্রগুলি খালি করে।

প্রতিরক্ষামূলক পোশাক: লম্বা-হাতা শার্ট, লম্বা প্যান্ট পরুন এবং বাইরে থাকার সময় মশা তাড়ানোর ওষুধ ব্যবহার করুন, বিশেষ করে মশার কার্যকলাপের সময় (সকালে এবং শেষ বিকেলে)।

মশারি ব্যবহার: রাতে মশার কামড় রোধ করতে মশারি ব্যবহার করুন।

সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টা: মশার প্রজনন স্থানগুলি হ্রাস করতে এবং ডেঙ্গু প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে সম্প্রদায়গুলি একসাথে কাজ করতে পারে।

টিকাকরণ: কিছু অঞ্চলে, একটি ডেঙ্গু ভ্যাকসিন পাওয়া যায় এবং নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীর জন্য সুপারিশ করা যেতে পারে।

উপসংহার

ডেঙ্গু জ্বর বিশ্বের অনেক অংশে একটি উল্লেখযোগ্য জনস্বাস্থ্য উদ্বেগ হিসাবে রয়ে গেছে। রোগটি ঘটলে প্রতিরোধ এবং পরিচালনা উভয়ের জন্যই এর কারণ, লক্ষণ এবং চিকিত্সা বোঝা গুরুত্বপূর্ণ। যদিও ডেঙ্গু একটি গুরুতর এবং এমনকি প্রাণঘাতী অসুস্থতা হতে পারে, তবে প্রাথমিক রোগ নির্ণয় এবং উপযুক্ত চিকিৎসা পরিচর্যা সম্পূর্ণ পুনরুদ্ধারের সম্ভাবনাকে উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মশার সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য জনস্বাস্থ্যের প্রচেষ্টা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

অ্যাপেন্ডিক্স বা অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

অ্যাপেন্ডিক্স বা অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

অ্যাপেন্ডিক্স বা অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি, লক্ষণ ও চিকিৎসা

আমাদের বৃহদন্ত্র নলের মতো ফাঁপা। বৃহদন্ত্রের তিনটি অংশের মধ্যে প্রথম অংশ হচ্ছে সিকাম। এই সিকামের সাথে ছোট একটি আঙ্গুলের মত দেখতে অংশটি হলো এপেনডিক্স।

কোন কারণে যদি এর মধ্যে পাঁচিত খাদ্য, মল বা কৃমি ঢুকে যায়, তাহলে রক্ত ও পুষ্টির অভাব দেখা দেয়। নানান জীবাণুর আক্রমণে এপেনডিক্সের ঐ অংশে বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। একেই এপেনডিসাইটিস বলে।

এটা পেটের নীচের ডান দিকে বুক আর শ্রোণীচক্রের মধ্যবর্তী এলাকায় অবস্থিত। আমাদের শরীরে অ্যাপেন্ডিক্স-এর সঠিক ভূমিকা অজানা, কিন্তু অন্যান্য প্রাণীদের মধ্যে, এটা হজমে সাহায্য করে।

আরও বিস্তারিত জানতে এবং সরাসরি ডাক্তারের পরামর্শের জন্য কল করুন – +8801949605525

অ্যাপেন্ডিসাইটিস হচ্ছে একটা জরুরি অবস্থা যাতে অ্যাপেন্ডিক্স উত্তপ্ত হয় এবং পেটের নীচের ডানদিকে প্রচণ্ড ব্যথা সৃষ্টি করে। এছাড়া, অ্যাপেন্ডিসাইটিস থাকা ব্যক্তিরা অন্যান্য উপসর্গ, যেমন বমি, জ্বর, এবং পিঠের নীচের অংশে ব্যথা অনুভব করেন।

পেটের অনেক ব্যথাই আমরা গ্যাসের ব্যথা বলে এড়িয়ে যাই। কিন্তু সব ব্যথাই তো আর গ্যাসের নয়। অনেক সময় ভয়ঙ্কক রোগের আলামত হিসেবেও এই ব্যথা দেখা দেয়।

অ্যাপেন্ডিক্স এর ব্যথাকে অনেকেই স্বাভাবিকভাবে দেখে দেরি করে ফেলেন কিন্তু এজন্য ঘটতে পারে অনেক বড় বিপদ। বিশ্বের প্রায় ৫ শতাংশ মানুষের প্রাণ যায় এই অ্যাপেন্ডিক্স এর সময়মতো চিকিৎসা না হওয়ায়।

অ্যাপেন্ডিসাইটিস কি?

অ্যাপেন্ডিসাইটিস হল একটা চিকিৎসাগত জরুরি পরিস্থিতি যা যেকোন বয়সে ঘটতে পারে কিন্তু ১০-৩০ বছর বয়সের ব্যক্তিদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। এটা অ্যাপেন্ডিক্স-এর একটা বেদনাদায়ক স্ফীতি বা প্রদাহ, একটা ছোট, নলাকার বা আঙুলের মত থলি যা বৃহদন্ত্র থেকে প্রসারিত হয়।

অ্যাপেন্ডিক্স-এর মুখটা হচ্ছে ছোট, যা খাবার এবং মলযুক্ত বস্তু এর মধ্যে জমা হতে পারে, কখনও কখনও একটা বাধা সৃষ্টি করতে পারে। এই বাধা একটা জীবাণুগত সংক্রমণ গড়ে তুলতে পারে। 

যদি অ্যাপেন্ডিক্স এই পর্যায়ে ফেটে যায়, এবং যদি সময়মত চিকিৎসা না করা হয় এটা পৈটিক গহ্বরে জীবাণুগত সংক্রমণ ছড়াবে যা জীবন-সংশয়কর হতে পারে। যখন অ্যাপেন্ডিক্স উত্তপ্ত হয়, আপনি আপনার পেটে থেকে থেকে ব্যথা অনুভব করতে পারেন।

ব্যথাটা ধীরে ধীরে তীব্র এবং অবিরত হয়। এটা নীচের ডানদিকে স্থির থাকে যেখানে অ্যাপেন্ডিক্স অবস্থিত। হাঁটা-চলা, কাশতে থাকা, অথবা পেটে চাপ দেওয়া ব্যথাটাকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে। জ্বর, খিদে না হওয়া এবং পেট খারাপ এগুলোও অ্যাপেন্ডিসাইটিস-এর সাথে কখনও কখনও জড়িত থাকে।

লক্ষণ সমূহঃ

পেটের নীচের ডানদিকে ব্যথা অ্যাপেন্ডিসাইটিস-এর বৈশিষ্ট্য। যাই হোক, আপনি এর সাথে যুক্ত অন্যান্য উপসর্গও অনুভব করতে পারেন, যেমনঃ

  • পেট খারাপ বা কোষ্ঠকাঠিন্য (পায়খানা শক্ত হওয়া)।
  • অল্প-মাত্রার জ্বর।
  • বমি বমি ভাব এবং বমি করা।
  • খিদে না হওয়া।
  • পৈটিক স্ফীতি (ফোলা)।
  • ফুলে ওঠা বা গ্যাস বার করতে অক্ষমতা।
  • নাভির চারপাশের ব্যথা পেটের নীচের ডানদিকে এগোতে থাকা।

অ্যাপেন্ডিসাইটিস এর উপসর্গগুলি হাঁটাচলা, তলপেটে চাপ দেওয়া কিংবা কাশতে থাকায় আরও খারাপ হতে পারে।

চিকিৎসাঃ

অ্যাপেন্ডিক্টোমি বা অ্যাপেন্ডিসেক্টোমি হচ্ছে একটা অস্ত্রোপচারমূলক প্রক্রিয়া যেখানে অ্যাপেন্ডিক্স বার করে দেবার জন্য তলপেটে একটা কাটা বা ছেদ করা হয়। কিছু ক্ষেত্রে, একটা অ্যান্টিবায়োটিক থেরাপিও ব্যবহার করা হয়।

যখন অ্যাপেন্ডিক্স-এর সরু নল মল অথবা খাবারে বন্ধ হয়ে যায়, এটা ফেটে যেতে পারে এবং ভিতরের বস্তুগুলো চারপাশের পৈটিক টিস্যুগুলিতে ছড়াতে পারে যার ফলে একটা সংক্রমণ ঘটাতে পারে। এই রকম কোন ক্ষেত্রে, সময়মত এই সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি।

অ্যাপেন্ডিসাইটিসের চিকিৎসা হলো আক্রান্ত অংশ বা অ্যাপেন্ডিক্স যত দ্রুত সম্ভব অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কেটে ফেলে দেওয়া। অস্ত্রোপচারের ভয়ে অনেকে হাসপাতালে যেতে চান না। অনেক সময় শিশু বা বেশি বয়স্করা ব্যথার সঠিক বর্ণনাও দিতে পারে না।

কিন্তু জটিলতা এড়াতে পেটে ব্যথা তীব্র ও স্থায়ী অথবা থেকে থেকে হলে রোগীকে শক্ত খাবার দেওয়া থেকে বিরত থাকুন বা মুখে খাবার দেওয়া বন্ধ রাখুন এবং দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান। এপেনডিসাইটিস হলে দেরী না করে সাথে সাথে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ অপারেশনই এই রোগের চিকিৎসা।

কোনো ওষুধে বা অ্যান্টিবায়োটিকে এ রোগ সারে না। অ্যাপেন্ডিসাইটিসের সমস্যা দেখা দিলে অপারেশন ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই করতে হয়। না হলে অ্যাপেন্ডিক্স ফেটে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা থাকে। তাই অ্যাপেন্ডিক্স জনিত লক্ষণ গুলো দেখা দিলেই দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন, সুস্থ থাকুন।

অ্যাপেন্ডিক্স সার্জারী এর অত্যাধুনিক চিকিৎসা সম্পর্কে ফ্রী পরামর্শ পেতে “সিরিয়াল বুক করুন

আরও বিস্তারিত জানতে এবং সরাসরি ডাক্তারের পরামর্শের জন্য কল করুন – +8801949605525

গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ এবং উপসর্গ: একটি ব্যাপক নির্দেশিকা

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ এবং উপসর্গ: একটি ব্যাপক নির্দেশিকা

গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ এবং উপসর্গ একটি ব্যাপক নির্দেশিকা

মাতৃত্বের যাত্রা একজন নারীর জীবনে একটি অসাধারণ এবং পরিবর্তনশীল অভিজ্ঞতা। গর্ভাবস্থার লক্ষণ ও উপসর্গ বোঝা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি এই অবিশ্বাস্য যাত্রার সূচনা করে। আপনি গর্ভাবস্থার পরিকল্পনা করছেন বা সন্দেহ করছেন যে আপনি গর্ভবতী হতে পারেন, এই প্রাথমিক সূচকগুলি সনাক্ত করা স্বচ্ছতা এবং মানসিক শান্তি প্রদান করতে পারে। এই নিবন্ধে, আমরা গর্ভাবস্থার বিভিন্ন উপসর্গগুলি অন্বেষণ করব, প্রাথমিক লক্ষণ থেকে আরও সুপরিচিত সূচক পর্যন্ত।

গর্ভাবস্থার প্রাথমিক লক্ষণ

  • মিসড পিরিয়ড: এটি প্রায়শই সবচেয়ে সুস্পষ্ট লক্ষণ যা অনেক মহিলাকে গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করতে প্ররোচিত করে। যাইহোক, এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে অন্যান্য কারণগুলি, যেমন স্ট্রেস বা হরমোনের পরিবর্তনগুলিও অনিয়মিত মাসিকের কারণ হতে পারে।
  • স্তনের পরিবর্তন: হরমোনের পরিবর্তনের ফলে স্তন ফোলা, কোমল বা ব্যথা হতে পারে। এরিওলাগুলি অন্ধকার হতে পারে এবং শিরাগুলি আরও দৃশ্যমান হতে পারে।
  • ক্লান্তি: প্রজেস্টেরনের মাত্রা বৃদ্ধির কারণে গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে অসাধারণভাবে ক্লান্ত বোধ করা সাধারণ।
  • ঘন ঘন প্রস্রাব: হরমোনের পরিবর্তনের কারণে পেলভিক এলাকায় রক্তের প্রবাহ বেড়ে যায়, যার ফলে বারবার বিশ্রামাগারে যেতে হয়।
  • সকালের অসুস্থতা: যদিও এটি দিনের যে কোনও সময় ঘটতে পারে, বমি বমি ভাব এবং বমি, প্রায়ই মর্নিং সিকনেস হিসাবে উল্লেখ করা হয়, সাধারণ লক্ষণ। এই লক্ষণগুলি হরমোনের পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট বলে মনে করা হয় এবং প্রথম কয়েক সপ্তাহের মধ্যে শুরু হতে পারে।

গর্ভাবস্থার পরবর্তী লক্ষণ

  • খাদ্যের প্রতি বিদ্বেষ এবং লালসা: হরমোনের পরিবর্তনের ফলে কিছু খাবারের প্রতি অস্বাভাবিক আকাঙ্ক্ষা বা ঘৃণা হতে পারে।
  • মেজাজের পরিবর্তন: হরমোনের ওঠানামাও মেজাজকে প্রভাবিত করতে পারে, যা মানসিক উত্থান-পতনের দিকে পরিচালিত করে।
  • ঘন ঘন মাথাব্যথা: কিছু মহিলা গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন এবং রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধির কারণে ঘন ঘন মাথাব্যথা অনুভব করেন।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য: ধীর হজম এবং মলদ্বারে ক্রমবর্ধমান জরায়ুর চাপের ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে।
  • হৃদস্পন্দন বৃদ্ধি: গর্ভাবস্থায় রক্তের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়, যার ফলে হৃদস্পন্দন দ্রুত হয়।
  • দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে সাধারণ গর্ভাবস্থার লক্ষণ
  • দৃশ্যমান বেবি বাম্প: গর্ভাবস্থা বাড়ার সাথে সাথে পেট প্রসারিত হয় এবং বেবি বাম্প আরও লক্ষণীয় হয়ে ওঠে।
  • ভ্রূণের নড়াচড়া: শিশুর নড়াচড়া অনুভব করা, প্রায়শই “দ্রুত হওয়া” হিসাবে বর্ণনা করা একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক। এটি সাধারণত 18 থেকে 25 সপ্তাহের মধ্যে ঘটে।
  • পিঠে ব্যথা: অতিরিক্ত ওজন এবং ভঙ্গিতে পরিবর্তনের ফলে পিঠে ব্যথা হতে পারে।
  • ফোলা: তরল ধারণ বৃদ্ধির কারণে গোড়ালি এবং পায়ে কিছু ফুলে যাওয়া সাধারণ।
  • ব্র্যাক্সটন হিকস সংকোচন: এগুলি হালকা, অনিয়মিত সংকোচন যা দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে শুরু হতে পারে, যদিও সেগুলি প্রকৃত শ্রম সংকোচন নয়।

সতর্কতা লক্ষণ যা অবিলম্বে চিকিৎসা প্রয়োজন

যদিও বেশিরভাগ গর্ভাবস্থার লক্ষণগুলি স্বাভাবিক এবং প্রত্যাশিত, কিছু সতর্কতা লক্ষণ উপেক্ষা করা উচিত নয়। এর মধ্যে রয়েছে:

  • যোনিপথে রক্তপাত
  • সাংঘাতিক পেটে ব্যথা
  • গুরুতর মাথাব্যথা, চাক্ষুষ ব্যাঘাত, বা মাথা ঘোরা
  • গুরুতর বমি বমি ভাব এবং বমি (হাইপারমেসিস গ্র্যাভিডারাম)
  • অকাল প্রসবের লক্ষণ, যেমন 37 সপ্তাহের আগে নিয়মিত সংকোচন

গর্ভাবস্থা হল একটি অনন্য এবং রূপান্তরকারী অভিজ্ঞতা, যা বিস্তৃত উপসর্গ দ্বারা চিহ্নিত যা মহিলা থেকে মহিলার মধ্যে পরিবর্তিত হয়। এই লক্ষণগুলি সনাক্ত করা এবং বোঝা আপনাকে আত্মবিশ্বাস এবং যত্নের সাথে মাতৃত্বের উত্তেজনাপূর্ণ যাত্রায় নেভিগেট করতে সহায়তা করতে পারে। আপনি যদি সন্দেহ করেন যে আপনি গর্ভবতী বা কোনো লক্ষণ অনুভব করতে পারেন, তাহলে সঠিক নির্দেশনা এবং প্রসবপূর্ব যত্নের জন্য একজন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা অপরিহার্য।

ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশন খরচ কত ?

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশন খরচ কত ?

ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশন খরচ কত

হার্নিয়া হল একটি সাধারণ চিকিৎসা যা একটি অঙ্গ বা টিস্যু পেটের পেশীতে দুর্বল স্থান দিয়ে ফুলে যায়। যদিও কিছু হার্নিয়ায় অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয় না, তবে জটিলতা প্রতিরোধের জন্য অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে। এই নিবন্ধে, আমরা ঢাকায়  হার্নিয়া অপারেশনের খরচ এবং কী কী কারণগুলি খরচকে প্রভাবিত করতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করব।

ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশনের খরচ

হার্নিয়ার ধরন, অবস্থার তীব্রতা, হাসপাতালের অবস্থান এবং সার্জনের অভিজ্ঞতা সহ বিভিন্ন কারণের উপর নির্ভর করে ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশনের খরচ পরিবর্তিত হতে পারে। সাধারণভাবে, ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশনের খরচ ৩০,০০০ টাকা থেকে ৬০,০০০ টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

যে বিষয়গুলো হার্নিয়া অপারেশনের খরচকে প্রভাবিত করে

1. হার্নিয়ার ধরন: হার্নিয়ার ধরন হর্নিয়া অপারেশনের খরচকে প্রভাবিত করে। বিভিন্ন ধরনের হার্নিয়ার জন্য বিভিন্ন অস্ত্রোপচারের কৌশল এবং উপকরণ প্রয়োজন, যা খরচকে প্রভাবিত করতে পারে।

2. অবস্থার তীব্রতা: হার্নিয়ার তীব্রতা অপারেশনের খরচকেও প্রভাবিত করতে পারে। সাধারণভাবে, বড় হার্নিয়া যা অস্ত্রোপচার করা আরও জটিল, ছোট, সরল হার্নিয়ার চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল হতে পারে।

3. হাসপাতালের অবস্থান: হাসপাতালের অবস্থান যেখানে অপারেশন করা হয় তা খরচের উপরও প্রভাব ফেলতে পারে। গ্রামীণ এলাকার হাসপাতালের তুলনায়  শহুরে এলাকায়  হাসপাতালগুলির খরচ বেশি হতে পারে।

3. সার্জনের অভিজ্ঞতা: সার্জনের অপারেশন করার অভিজ্ঞতাও খরচকে প্রভাবিত করতে পারে। কম অভিজ্ঞ শল্যচিকিৎসকদের তুলনায় অধিক অভিজ্ঞ সার্জন তাদের পরিষেবার জন্য উচ্চ ফি নিতে পারেন।

উপসংহার

আপনি যদি হার্নিয়ার লক্ষণগুলি অনুভব করেন তবে সঠিক নির্ণয় এবং উপযুক্ত চিকিত্সা পাওয়ার জন্য অবিলম্বে চিকিত্সার পরামর্শ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। যদিও ঢাকায় হার্নিয়া অপারেশনের খরচ বিভিন্ন কারণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে, তবে যত্নের গুণমানকে অগ্রাধিকার দেওয়া এবং হার্নিয়ার চিকিৎসার জন্য একটি ভাল খ্যাতি সহ একটি হাসপাতাল এবং সার্জন বেছে নেওয়া অপরিহার্য।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ-  আপনি যদি ঢাকায় হার্নিয়ার সার্জারির কথা বিবেচনা করেন, তাহলে আরও বিস্তারিত জানতে কল করুনঃ +880 1949-605525

ডাঃ মোঃ ফরহাদ আহমেদ

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

ডাঃ মোঃ ফরহাদ আহমেদ

নিউরো সার্জারি বিশেষজ্ঞ

এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য)
এমএস (নিউরো সার্জারি)
(ব্রেইন, স্পাইন ও স্ট্রোক সার্জন)

নিউরো সার্জারি বিভাগ,
ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতাল

ডাক্তারের ভিজিট

নতুন রোগী - ৳ ১০০০

পুরাতন রোগী - ৳ ৮০০

সিরিয়ালের জন্য ফোন করুন -

রোগী দেখার সময়-

বিঃদ্রঃ আপনি যদি এই তথ্যটি আপডেট অথবা মুছতে চান তবে দয়া করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

সেরা নিউরো সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের তালিকা।

ডাঃ মো. নওশাদ আলম

সিরিয়ালের জন্য যোগাযোগ করুন -

মো. নওশাদ আলম

বিশেষজ্ঞ সার্জন 

এমবিবিএস (ডিএমসি), বিসিএস (স্বাস্থ্য),
এফসিপিএস (সার্জারি) এমএস (ইউরোলজি),
ইউআরসি (সিঙ্গাপুর)

ইউরোলজি ও ল্যাপারোস্কোপিক সার্জন বিশেষজ্ঞ

সহকারী অধ্যাপক, ইউরোলজি বিভাগ
ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনী ডিজিজেস এন্ড ইউরোলজি

ডাক্তারের ভিজিট

নতুন রোগী - ৳ ১০০০

পুরাতন রোগী - ৳ ৮০০

সিরিয়ালের জন্য ফোন করুন -

রোগী দেখার সময়-

বিঃদ্রঃ আপনি যদি এই তথ্যটি আপডেট অথবা মুছতে চান তবে দয়া করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

সেরা সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের তালিকা।